যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার ক্ষমতা ত্যাগের আগ মুহূর্তেও তেহরানের বিরুদ্ধে আবারও নিষেধাজ্ঞা দিয়ে যাচ্ছে ওয়াশিংটন। মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় গতকাল ৩ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) একটি ইরানি কোম্পানি ও তার পরিচালকের বিরুদ্ধে এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্ভাবনী গবেষণা বিষয়ক সংস্থা- সেপান্দের সঙ্গে সহযোগিতামূলক কাজ করার দায়ে ‘শহীদ মেইসামি কমপ্লেক্স’ নামক কোম্পানি ও তার পরিচালক মেহরান বাবরির ওপর এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হল। এই কোম্পানি বেসামরিক কাজে রাসায়নিক বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে তৎপরতা চালায়। গত শুক্রবার সেপান্দের প্রধান ও বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদে এক সন্ত্রাসী হামলায় শাহাদাতবরণ করেন।

মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এই দাবি করেছে যে, সেপান্দের সঙ্গে শহীদ মেইসামি কমপ্লেক্স যৌথভাবে যে ধরনের রাসায়নিক কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে তার মাধ্যমে রাসায়নিক অস্ত্র তৈরি করা সম্ভব। মার্কিন অর্থমন্ত্রী স্টিভেন মানুচিন বলেছেন, “ইরানের রাসায়নিক অস্ত্র তৈরির যেকোনো প্রচেষ্টার বিরোধিতা করে যাবে আমেরিকা।”তিনি দাবি করে বলেন, ইরান যদি রাসায়নিক অস্ত্র তৈরি করতে পারে সে তার প্রতিবেশী দেশগুলোর ওপর তা প্রয়োগ করবে।

মার্কিন অর্থমন্ত্রী এমন এক সময়ে এ দাবি করলেন যখন ১৯৮০’র দশকে ইরান তার প্রতিবেশী দেশ ইরাকের পক্ষ থেকে ব্যাপকভাবে রাসায়নিক হামলার শিকার হয়েছিল। এর আগে ইরান বহুবার বলেছে, তাদের রাসায়নিক অস্ত্র তৈরি করার কোনো পরিকল্পনা তার নেই।

সূত্র : পার্সটুডে।