ইরানের রাজধানী তেহরানের অদূরে ইমাম খোমেনী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ২য় টার্মিনাল নির্মাণের ব্যাপারে ৩টি বিদেশি পুঁজি বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচনা হচ্ছে বলে জানিয়েছে তেহরান।

রাজধানী তেহরান থেকে প্রায় ৩০ কি.মি. দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত এই বিমানবন্দরের একমাত্র টার্মিনাল- টি-ওয়ান দিয়ে বর্তমানে বছরে প্রায় ৭০ লাখ যাত্রীর যাতায়াতের ব্যবস্থা আছে। গত জুন মাসে প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি এ বিমানবন্দর দিয়ে হজ্ব ও ওমরায় যাতায়াতের যাত্রীদের জন্য ‘সালাম’ নামকে একটি টার্মিনাল উদ্বোধন করেন। এই টার্মিনাল দিয়ে বছরে প্রায় এক কোটি যাত্রীর যাতায়াতের ব্যবস্থা থাকলেও এটি ইমাম খোমেনী বিমানবন্দর সম্প্রসারণের মাস্টার প্ল্যানের অন্তর্ভুক্ত নয়।

মাস্টার প্ল্যানভুক্ত ২য় টার্মিনাল- ‘টি-টু’ নির্মাণের জন্য ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে ফ্রান্সের শিল্প গোষ্ঠী ‘বুইগ’ ইরানের সঙ্গে প্রাথমিক পর্যায়ের চুক্তি সই করেছিল। কিন্তু মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় পড়ার আশঙ্কায় কোনো ব্যাংকই ইরানের সঙ্গে অর্থ লেনদেন করতে অস্বীকৃতি জানায়, ফলে ওই কোম্পানি ২০১৭ সালে ২,৮০০ কোটি ডলারের এই চুক্তি ছেড়ে চলে যায়।

ইমাম খোমেনী বিমানবন্দর সিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মাদ মেহদি কারবালায়ি জানিয়েছেন, “আমরা ৩টি বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে ‘টার্মিনাল-২’র নির্মাণকাজ সম্পন্ন করার ব্যাপারে আলোচনা চালাচ্ছি। এ বিমানবন্দরের বার্ষিক ধারণক্ষমতাকে আমরা আরো সাড়ে তিন কোটি থেকে চার কোটি পর্যন্ত উন্নীত করতে চাই।”

তিনি ওই বিদেশি ৩ কোম্পানির নাম উল্লেখ করতে রাজি হননি; তবে এটুকু বলেছেন, এসব কোম্পানি বিভিন্ন ইরানি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সহযোগিতার ভিত্তিতে এ কাজ সম্পাদন করবে।

সূত্র : পার্সটুডে।